সিক্রেট অব হ্যাপিনেস

ছোটবেলা থেকেই আমি একজন সুখী মানুষ। একদম বাচ্চাবেলা থেকে বড়বেলা পর্যন্ত আমার হ্যাপিনেসের কারণ ছিলো নানারকম জিনিষ নিয়া গবেষণা ও চিন্তা করতে ভালো লাগতো। বই পড়তে অনেক ভালো লাগতো, পড়তাম। বাসার ইলেকট্রনিক্স জিনিষপত্র খুলে দেখতে ভালো লাগতো, দেখতাম (তবে সেগুলো নষ্ট করে বকা খেয়ে হ্যাপিনেসে কিছুটা ব্যাঘাট ঘটতো)। আরেকটু বড় হয়ে ভিডিও গেমস, কম্পিউটার আর বন্ধুবান্ধব ছিলো আমার হ্যাপিনেসের প্রধান উৎস। বন্ধুরা সবসময় বলতো, আমার মত টেনশনলেস আর হ্যাপি মানুষ নাকি তারা কখনো দেখে নাই। কিভাবে এত সুখী ছিলাম? অনেক ভেবে তার দু'টো প্রধান কারণ বের করেছি। প্রথমত, আমার চাহিদা খুব কম ছিলো। জীবনে যা পেয়েছি তা নিয়ে সুখী হয়েছি, যা পাইনি সেগুলো নিয়ে কোন আফসোস কাজ করেনি। দ্বিতীয় কারণ ছিলো- লোভ, হিংসা আর অহংকার কাজ করতো না। এটা অন্যতম বড় ব্যপার। কারণ, আমাদের বেশীরভাগ হ্যাপিনেসের ব্যঘাত ঘটায় লোভ, হিংসা আর অহংকারের মত মানবিক ত্রুটিগুলো। আর এই লোভ, হিংসা আর অহংকার মুক্ত হতে পেরেছি মানুষের প্রতি মমতা কাজ করায়। যেখানে মমতা থাকে সেখানে ঈর্ষা কাজ করে না। বাবা-মায়েরা এজন্য বাচ্চাদের সাফল্যে ঈর্ষার্নীত হয় না। এই 'মমতা' জিনিষটা হ্যাপিনেসের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ন। কতটা গুরুত্বপূর্ন তার একটা উদাহরণ দেই।

তাতিয়ানা যা করে আমার তাই ভালো লাগে। গত তিন বছর লিটারেলি মুগ্ধ হয়ে ওরে পর্যবেক্ষন করে কেটেছে। এটা যে কি পরিমান আনন্দ দেয়, যাদের বাচ্চা আছে তারা জানে। গত তিন বছর ক্যারিয়ার ও অন্যসব বিষয় নিয়ে প্রচুর ডিস্টার্ব ছিলাম। ২০১২ তে একটা বড় ইনভেস্টমেন্টে ধরা খেয়ে সেটা রিকোভারী করতে করতে কেটেছে। বলতে গেলে ডিজাস্টার ছিলো। কিন্তু তারপরেও, এই তিন বছরকে আমার জীবনের সেরা তিন বছর বলে মনে হয়। এটা হয়েছে তাতিয়ানার জন্য। কেন তাতিয়ানা এত বড় আনন্দের উৎস হলো? ভেবে দেখলাম, স্রেফ মমতা। তাতিয়ানার প্রতি যেটুকু মমতা কাজ করে, পুরো পৃথিবীর সকল মানুষের জন্য এটা কাজ করলে পুরো জীবনটাই গত তিন বছরের মত অসাধারণ হতো।

আমার পর্যবেক্ষন বলে, সুখী হওয়ার জন্য দু'টো জিনিষ দরকার। ১) যেকোন অবস্থায় সন্তুষ্ট থাকা (চাহিদা নিয়ন্ত্রন) ও ২) মানুষের প্রতি মমতা। এটা যত ভালো পারবেন, আপনি তত বেশী সুখী হবেন।


Thoughts