আইএস বিষয়ক বিভিন্ন সময়ের ভাবনাগুলো

দেশে আইএসের আগমন ও আক্রমন বিষয়ক বিভিন্ন ঘটনা ও এর সাথে সম্পর্কিত ফেসবুকে প্রকাশিত আমার ভাবনাগুলো এখানে আর্কাইভ করা হলো-

Bangladesh in deep crisis. Unity is the only thing to save us now.

2 Jul, 2016

দেশে আইএস আছে কি নাই সেটা গুরুত্বপূর্ন না বরং যুক্তরাষ্ট্র এদেশে আইএস আছে প্রমাণ করতে চায় কিনা সেটা গুরুত্বপূর্ন। প্রথম আলো 'ঢাকায় ইতালির নাগরিককে হত্যার দায় স্বীকার আইএসের!' শিরোনামের নিউজটা করতে গিয়ে আমেরিকান যে সাইটের বরাত দিয়েছে, সেই সাইটটা কতটুকু অথেনটিক সেটার উপরে এই মূহুর্তে বাংলাদেশের ভবিষ্যত নির্ভর করছে। আমেরিকা যখন কোন রাষ্ট্রে 'আইএস' আছে প্রমাণ করতে চায়, সেই রাষ্ট্রের জন্য সেটা সুখবর হতে পারে না। যদি এরকম কিছু হয়েই থাকে, তাহলে দেশ আরেকটা ১/১১ এর দিকে যাবে।

29 Sep, 2015

খবরঃ বাংলাদেশে আইএসের অস্তিত্ব নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
একটা দেশের ভেতরে জঙ্গি সংগঠনের অস্তিত্ব আনুষ্ঠানিক ভাবে স্বীকার না করাই স্বাভাবিক ব্যপার, কারণ এসব জঙ্গি সংগঠনগুলোর বেশির ভাগই আন্তর্জাতিক রাজনীতির অংশ এবং কৃত্তিম ভাবে সৃষ্টি করা হয়েছে। বেশির ভাগই রিভার্স গেম। আপনি যদি দেশের স্বার্থের কথা চিন্তা করেন, তাহলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কি আওয়ামীলীগের না বিএনপির সেদিকে তাকালে চলবে না। দেশের স্বার্থে এখানে দলমত নির্বিশেষে একমত হওয়া উচিত। জনগন যদি এসব ক্ষেত্রে সরকারের সাথে থাকে তাহলে এধরনের কোন সংগঠন সহজেই দমন করা সম্ভব হয়। আপনাদের মনে থাকার কথা, বিএনপির সময় যখন জেএমবির উত্থান হচ্ছিলো তখন বিএনপি ব্যপারটি আনুষ্ঠানিক ভাবে স্বীকার না করলেও ঠিকই তাদের দমন করেছিলো। যদিও সেটা করতে তারা কিছুটা দেরী করে ফেলেছিলো। তবে সেসময় দেশের বেশির ভাগ মিডিয়া, বুদ্ধিজীবি ও শিক্ষিত জনগনের একটা বড় অংশ সরকারকে সহযোগীতা করার বদলে জেএমবির দায় বিএনপির উপরে চাপাতে ব্যস্ত ছিলো। আন্তর্জাতিক মহলেও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপ্রচার চালিয়ে গিয়েছে কয়েকটি রাজনৈতিক দল ও এদের পোষা বুদ্ধিজীবিরা। এতে লাভের লাভ যা হয়েছে- বাংলাদেশ ব্লাকলিস্টেড হয়েছিলো। হিলারী ক্লিনটন যদি সেসময় বাংলাদেশের পাশে না দাঁড়াতো, তাহলে আজকের বাংলাদেশের অবস্থা পাকিস্থানের মত হয়ে যাওয়া বিচিত্র কিছু ছিলো না। এক হিলারী ক্লিনটনের প্রচেষ্টায় সেসময় বাংলাদেশের নাম কালো তালিকা থেকে মুক্ত হয়েছিলো।
বিএনপির সময়ে আওয়ামীলীগ ও আওয়ামী সমর্থক-বুদ্ধিজীবিরা দেশের যে ক্ষতিটা করেছিলো, বিএনপি ও বিএনপির সমর্থক-বুদ্ধিজীবিরা সেরকম কিছু করবে না আশা করি। দেশের স্বার্থেই এই ব্যপারটা রাজনীতির উর্ধ্বে রাখা উচিত। আইএস টাইপ কোনকিছুর উত্থান হওয়ার আগেই সরকারকে সেগুলো দমনে সহযোগীতা করা উচিত।

30 Sep, 2015


Thoughts