নতুন বছরের রেজ্যুলেশন ও এইসব দিবস টিবস

বছরের এক তারিখে কেন সবাই নতুন বছরের রেজ্যুলেশন ঠিক করে? অথবা রেজ্যুলেশন ঠিক করার জন্য এরকম একটা দিন-ক্ষনকে কেন বেছে নেয়া হয়? কেনইবা এত দিবস-টিবস?

মানুষ দিন-ক্ষন বেছে নিয়ে সবাই মিলে কিছু একটা করার চেষ্টা করে কারণ এতে কিছু সুবিধা পাওয়া যায়। কি সুবিধা সেটা বিস্তারিত জানতে হলে Crowd psychology লিখে সার্চ দিতে পারেন। এটা Mob psychology নামেও পরিচিত। সার্চ করেই যেহেতু ব্যপারগুলো আপনি জানতে পারছেন সেহেতু থিওরী আর না কপচাই। তারচাইতে আপনার আমার অভিজ্ঞতা থেকে ব্যপারটা বোঝার চেষ্টা করি। কখনো মিছিলে গিয়েছেন? অথবা ওপেন এয়ার কনসার্টে? ধার্মিকেরা হাজ্জ্বে? নিদেনপক্ষে ওয়াজ মাহফিল বা বিশ্ব ইজতেমায়? অন্তত জু'মার নামাজ তো পড়তে যান। অনেক মানুষ একসাথে হয়ে কিছু একটা করার সময়কার অনুভূতিটা মনে আছে? কখনো খেয়াল না করে থাকলে পরেরবার খেয়াল করে দেখবেন।

অনেক মানুষ একত্রে যা করে বা করতে চায়, সেই চাওয়া খুব শক্তিশালী।

Crowd psychology খুবই ইন্টারেস্টিং ব্যপার। এটা খুবই দারুণ একটা ম্যাকানিজম যার ভেতরে অসীম সম্ভবনা লুকিয়ে থাকে। এর থেকে অনেক কিছুই হয়ে যেতে পারে, পজেটিভ বা নেগেটিভ। Crowd psychology-র ব্যপারে অবগত বলেই দেখবেন অত্যাচারী ও অন্যায়কারী শাসকেরা মানুষকে একত্র হতে দেয় না। মিছিল মিটিং নিষিদ্ধ করে রাখে। বছরের প্রথম দিনে বা কোন বিশেষ কিছু করার জন্য বিশেষ দিবস ঠিক করার উদ্দেশ্যও এই Crowd psychology-র সুবিধা নেয়ার জন্য। অনেক মানুষ একত্রে যা করে বা করতে চায়, সেই চাওয়া খুব শক্তিশালী। একতাবদ্ধ হওয়া বা একদিনে কিছু করার প্রচেষ্টা তাই ভালো। তবে যদি ভালো উদ্দেশ্যে হয়ে থাকে।

কিছু উদাহরণ দেয়া যাক-
ধরুন একটা দিনকে আনন্দের দিন ঘোষণা করা হলো। ঠিক করা হলো ঐদিন শুধু আনন্দ। নো ঝগড়া-ঝাটি। তারপর সবাই যদি সেটা মেনে নেয় তাহলে ঐ দিনটা সত্যি সত্যি আনন্দের দিন হয়ে যাবে। যার সাথে আপনার ঝগড়া লেগেই থাকে তাকে দেখলেও সেইদিন ভালো লাগবে। ঝগড়া হবে না। এভাবে কোন দিন বিষাদের বা বিপদেরও হতে পারে। যেমন ধরুন ঠিক করা হলো দশদিন পর ঐ তারিখে হরতাল। ব্যপক বিক্ষোভ হবে। সবাই মোটামুটি মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিয়ে ফেললো। তারপর দেখা যাবে ঐদিনটায় আসলেই অনেক কিছু হচ্ছে। নিতান্ত গোবেচারা ধরনের লোকটাও দেখা গেল একটা গাড়ি ভাংচুরে অংশ নিয়ে ফেললো।


Thoughts