হে মানবজাতি, তোমরা বড়ই তাড়াহুড়া!

সবসময় রাত জেগে কাজ করি তাই সেহরী খাওয়ার সময় নিয়ে সমস্যা হয় না। আজকে একটা ঘুম দিলাম এবং আজকেই সবার দেরী হয়ে গেল। ঘুম থেকে সবাই উঠেছে ৩:৩০-এ... উঠে সেকি তাড়াহুড়া। আমি বললাম– 'রিলাক্স'! কে শুনে কার কথা। সবাই তাড়াহুড়া করে খাবার নিচ্ছে, খাচ্ছে। পানিটা ঢালতেও তাড়াহুড়া। আমি সবার পরে খুব রিলাক্স মুডে খাবার নিলাম, আরাম করে খেলাম। অন্যদিন যতটা স্পিডে খাই আজকে তারচাইতেও ধীর গতিতে খাচ্ছি, খাবারের প্রতিটা স্বাদও আলাদা করে যেন বুঝতে পারছিলাম। যারা তাড়াহুড়া করে খাচ্ছিলো দেখা গেল আমার সাথেই তাদের খাওয়া শেষ হলো। ৩০ সেকেন্ড এদিক ওদিক।
খেয়ে খুব আয়েশ করে ছুরি দিয়ে একটা আম কেটে খাচ্ছি আর সবার দিকে তাকিয়ে হাসছি। বললাম– 'হে মানবজাতি, তোমরা বড়ই তাড়াহুড়া!'

সবসময় দেখেছি, মাঝে মাঝে ভোরে কোন কাজ থাকলে ঘুম থেকে উঠতে একটু দেরী হয়ে গেলে পাঁচ মিনিটেই কিভাবে যেন রেডী হয়ে যেতে পারি। অথচ, অন্যদিন দশ-পনের বা বিশ মিনিট লাগে। আবার ঐ পাঁচ মিনিটে যদি তাড়াহুড়া করতে যাই তাহলে আবার রেডী হওয়া হয় না ঠিকমত। তাড়াহুড়া করলে আসলে দেরী হয় আরো। মানসিক একটা চাপ কাজ করে যেটা চিন্তা শক্তিও কমিয়ে দেয়। এটা নিয়ে একটা জোক আছে-

একবার এক ব্যক্তি ট্রেনের ভেতরে খুব পায়চারী করছে। লোকজন জিগায়–
: ভাই, কী হইছে? রিলাক্স!
: না ভাই, আমার খুব তাড়া আছে! দ্রুত পৌঁছতে হবে।

পৃথিবীতে আমরা যারা খুব তাড়া নিয়ে দৌড়ে বেড়াই, তারা আসলে অন্যদের চাইতে দ্রুত কিছুই করতে পারি না। খামোখা সময়গুলো খারাপ কাটে।


Thoughts