পৃথিবীর ভবিষ্যত

পৃথিবীর বিভিন্ন সভ্যতা নিয়া আমার ক্ষুদ্র স্টাডি থেকে দেখেছি একমাত্র ইসলামিক সভ্যতাই ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার করার চেষ্টা করেছে। এখন যেভাবে মুসলিমদের উপরে অত্যাচার অবিচার হলে সবাই চোখ বুজে সেটা না দেখার ভান করে, ইসলামিক সভ্যতা অন্য ধর্ম বা জাতিগোষ্ঠীর উপরে হওয়া অত্যাচারের বেলায় এটা করে নাই। ভবিষ্যতে যদি আবার ইসলামিক সভ্যতার পুনঃজারণ ঘটে তাহলে বিগত শতাব্দীগুলোতে মুসলিমদের উপরে হওয়া অত্যাচারের বদলা নেয়ার চেষ্টা মুসলিমরা কখনোই করবে না বরং তাদের রক্ষা করার চেষ্টা করবে। কারণ, এটাই ইসলামের শিক্ষা। এই কারণেই ইসলামিক সভ্যতা এত দ্রুত পৃথিবী জয় করেছিলো। তারপর, ইসলামিক সভ্যতা কিভাবে হারিয়ে গেল? স্রেফ শিক্ষার অভাবে। শিক্ষা ও জ্ঞান চর্চায় মুসলিমরা পিছিয়ে যাওয়াতে তাদের ভেতরে ব্যপক ভাবে কুসংস্কার, হিংসা ও বিদ্বেষের বীজ বপন করা সম্ভব হয়েছে যার ধারাবাহিকতা এখনো চলছে। ফলশ্রুতিতে, অন্যসব সভ্যতার সাথে মুসলিম সভ্যতার ব্যবধানটা ঘুচে গিয়েছিলো এবং স্বভাবতই পতন। অত্যাচারীরা কখনো দীর্ঘদিন ক্ষমতার শীর্ষে বসে থাকতে পারে না। সে আপনি যে ধর্ম-মতের দোহাই দিয়েই করেন না কেন। বর্তমানে যারা অত্যাচারী হিসেবে চিহৃিত তাদের পতনও খুব দ্রুতই ঘনিয়ে আসছে। কিন্তু তাদের পতনের পরে কাদের সভ্যতা শুরু হবে? মুসলিমদের? আমার তা মনে হয় না। বর্তমান মুসলিমরা পৃথিবী শাসন করার জন্য পুরোপুরি অযোগ্য। আগামী এক শতাব্দীতেও তাদের ফিরে আসার কোন লক্ষণ দেখছি না।

তাহলে কারা আসতে পারে? যারাই আসুক, পৃথিবীতে তারা সত্যিকার ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করবে না বলেই মনে হচ্ছে এবং বর্তমানে যে খারাপ অবস্থাটা চলতেছে, পরিস্থিতি এরচাইতেও খারাপ হবে। পৃথিবী ফুটন্ত কড়াই থেকে জ্বলন্ত উনুনে পতিত হওয়ার পথে।


Thoughts