প্রাইভেট ভার্সিটির ভ্যাট বিরোধী আন্দোলন ২০১৫

২০১৫-১৬ অর্থ বছরের বাজেটে বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউশন ফির ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট বসানোর প্রতিবাদে এই আন্দোলন শুরু হয়। ১লা জুলাই ২০১৫ থেকে এই ভ্যাট কার্যকর হওয়ার প্রাইভেট ভার্সিটির শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ব্যয় মাথাপিছু চল্লিশ হাজার টাকা থেকে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বেড়ে যায়। এই ভ্যাট বাতিলের দাবীতে শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্নভাবে আন্দোলন শুরু করে। বিভিন্ন বেসরকারী ভার্সিটির শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময়ে শান্তিপূর্নভাবে মানববন্ধন পালন করতে শুরু করে। ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির এরকমই একটি শান্তিপূর্ন সমাবেশে পুলিশ গুলি চালিয়ে বেশ কিছু শিক্ষার্থীকে আহত করার পর ভার্সিটি থেকে 'ভ্যাট দিমু না গুলি কর' শ্লোগান দিয়ে হাজার হাজার শিক্ষার্থী রাস্তায় নেমে আসে। ধীরে ধীরে সকল বেসরকারী ভার্সিটিও এই আন্দোলনে যোগ দেয়। প্রথম দিকে অধিকাংশ জাতীয় গণমাধ্যম এই খবরের গুরুত্ব না দিলেও সামাজিক গণমাধ্যমগুলোতে প্রবল আলোচনা ও ভ্যাট বিরোধী ফেসবুক ইভেন্টগুলোর জনপ্রিয়তা দেখে স্বল্প পরিসরে নিউজ করতে শুরু করে। ততদিনে বিভিন্ন বেসরকারী ভার্সিটির শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে এসে ঢাকা অচল করে দেয়। কিছু কিছু জায়গায় পুলিশ ও ছাত্রলীগের সাথে বিচ্ছিন্ন কিছু সংঘর্ষ হলেও পরবর্তীতে পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে ভ্যাট প্রত্যাহার করা হয়।

Related Blogs

প্রাইভেট ভার্সিটির 'বড়লোক' পোলাপানদের আবার কিসের আন্দোলন?

বাংলা ভাষার বেশ কিছু বিভ্রান্তিকর শব্দ আছে। 'বড়লোক' তার ভেতরে একটা। কোন এক আজব কারণে এইদেশে বিত্তশালীদের 'বড়লোক' বলা হয়। তাহলে যাদের বিত্ত নাই তারা কি ছোটলোক? তা কিন্তু না। তাহলে বিত্ত থাকলেই বড়লোক হয় কিভাবে? আমার জানা বড়লোকের সংজ্ঞায় মেপে অনেক রিকশাওয়ালা, ফেরিওয়ালা ব্যক্তিকেও বড়লোক হিসেবে পেয়েছি। আবার একদিন আড়ং এর সামনে বিএমডব্লিউ চেপে আসা এক ছোটলোক-কে দেখেছিলাম। আপনার জানা সংজ্ঞায় সে হয়তো অনেক বড়লোক। সে হিসেবে পৃথিবীর সবচাইতে বিত্তশালী ব্যক্তি যদি সর্বোচ্চ মাপের বড়লোক হয় তাহলে বিল গেটসের তুলনায় আপনি কতটা ছোটলোক একবার ভেবে দেখেন!

শিক্ষার্থীদের ভ্যাট বিরোধী আন্দোলন নিয়ে আমার যত ফেসবুক স্ট্যাটাস

বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ভ্যাট বিরোধী আন্দোলনটা মূলত সফল হয়েছে শিক্ষার্থীদের অসম সাহস ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে একতাবদ্ধ হওয়ার ফলে। সেসময় গুটিকয়েক ব্যক্তি ছাড়া বাকী সকলেই ধীরে ধীরে এই আন্দোলনে পক্ষে কথা বলেছিলো। পুলিশ ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের উপর গুলিবর্ষন করার দিন থেকে এর প্রতিবাদে ফেসবুকে একটি ইভেন্ট খোলা হয়েছিলো। সেই ইভেন্টে নিয়মিত আন্দোলনের গতি-প্রকৃতি পর্যবেক্ষন ছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে প্রোফাইল পিকচারে 'NO VAT ON EDUCATION' ব্যাজ ধারণ করে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম। প্রতিদিন আন্দোলনের পক্ষে অসংখ্য কমেন্ট করেছি, ফেসবুকে স্টেটাস দিয়েছি। তেমনি কিছু স্টেটাস এখানে সংকলিত হলো।

Thoughts